Follow us on

ভাজাভুজির নতুন মেনু ও বেনুদির রান্নার আসর সাজিয়ে রসনাবরণে চিলেকোঠা!

এই হালের কলকাতায় পুরাতন  ঘরানাকে ফিরিয়ে এনেছে চিলেকোঠা। সেখানের নস্টালজিক পরিবেশ নিয়ে যায়  পুরনো কলকাতার পথে। কাঠের ঘোরানো সিঁড়ি, দেওয়াল চিত্র, আলোক সজ্জায় সেজে উঠেছে রেস্তরাঁর অন্দরমহল।

নিজস্ব সংবাদদাতা
কলকাতা | ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ০৫:৫৭ শেষ আপডেট: ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২০, ০৬:০৮
ছবি- শুভেন্দু চাকী

‘চিলেকোঠা’ শব্দটা ভাসিয়ে নিয়ে যায় পুরনো কলকাতার দিনগুলোতে। আগে কলকাতা আর বাড়ির আড্ডা মানেই ছিল ছাদের চিলেকোঠা। কিন্তু সময় বদলেছে, প্রাচীন কলকাতা ধুলো ঝেড়ে হয়ে উঠেছে ঝাঁ চকচকে। তাই বাদ পরেছে চিলেকোঠা শব্দটাও। তা বলে কিমন থেকে বাদ দেওয়া যায় বাঙালিয়ানাকে! বাঙালি মনেই, আড্ডার আসর। বাঙালি মনেই, ‘চিলেকোঠা’-র খাওয়াদাওয়া। রেস্তরাঁটি ডোভার লেনে।

সেখানেই শুরু হয়ে গিয়েছে স্ন্যাক্সের নানা জমাটি আয়োজন। এ ছাড়াও জানুয়ারিতে সুপ্রিয়া দেবীর জন্ম ও মৃত্যুর মাসের কথা মাথায় রেখে তাঁর রেসিপির সেরা রান্নাগুলোকেও হাজির করেছে চিলেকোঠা। স্ন্যাক্সের পর্বের নাম: ‘গল্প গুজবে মুচমুচে আড্ডা’। গল্পের আড্ডায় আপনার মেনুর নামেও রয়েছে নস্টালজিয়া।  মচমুচে গল্পেমচমচে নিমকি, আড্ডাবানের ফ্রে়ঞ্চ ফ্রাইস, ফিশের সাথে চিপস আর খুনসুটি, চিকেন মোগলাই যেন বন্ধুত্বের রোশনাই, বন্ধুত্বের স্বাদে চিকেন মোমো, তুমি আমি আর ফিশ ফিঙ্গার, মাটন চপ খাও গপাগপ, গল্পের কিট আর টোস্ট বিস্কুট, চপের নামেই খুনসুটি ছানা আর মটরশুটি, স্বাদে ভরা চিন্টুদার চিকেন পকোড়া এবং ডিমের সাথে দিলরুবা ভঙ্গি!

ছবি- শুভেন্দু চাকী

সঙ্গে চায়ের তালিকায় রয়েছে নলেন গুড়ের চা, লেবু চা, মাচ মান্দারিয়ান, দার্জিলিং বাতাসিয়া, ব্লু লাগন, দার্জিলিং গ্রিন টি এবং ব্লিস, ব্ল্যাক কফি, এক্সপ্রেস কফি, কলকাতা চা ইত্যাদি। আর সব চা-ই মিলবে চায়ের দোকানের মতো কাটিং গ্লাসে।

ছবি- শুভেন্দু চাকী

এখানেই শেষ নয়। যদি ৯ ফেব্রুয়ারির আগে চিলেকোঠা থেকে ঘুরে আসতে চান, তবে ‘বেনুদির রান্নাবান্না’র স্বাদও চেখে দেখতে পারেন। সেখানে মিলবে বেনুদির হেঁশেলেরবিখ্যাত সব রান্না।আপনার আড্ডার পাতে থাকতেই পারে মটন চাপ ফ্রাই, সুপ্রিয়ার চিকেন, কাজু চিকেন, মুরগি আর স্যুপ, ভাপা কাঁকড়া গার্লিক ব্রেড ও  পালং পনির কোপ্তার মতো জিভে জল আনা সুস্বাদু আরও অনেক পদ।

ছবি- শুভেন্দু চাকী

এই হালের কলকাতায় পুরাতন  ঘরানাকে ফিরিয়ে এনেছে চিলেকোঠা। সেখানের নস্টালজিক পরিবেশ নিয়ে যায়  পুরনো কলকাতার পথে। কাঠের ঘোরানো সিঁড়ি, দেওয়াল চিত্র, আলোক সজ্জায় সেজে উঠেছে রেস্তরাঁর অন্দরমহল। পুরনো বাঙালিয়ানাকে উজ্জীবিত করতে ডোভার লেনের এই রেস্তরাঁটির তুলনা হয় না।

ছবি- শুভেন্দু চাকী

একা হোক বা দু’জন, প্রিয়জন হোক বান পরিবার, যে কোনও সঙ্গই জমে যেতে পারে চিলেকোঠার আবহে।  স্ন্যাক্সের দাম শুরু হচ্ছে ৬০ টাকা থেকে। ২৬৫ টাকার মধ্যেই পেয়ে যাবেন সব রকমের স্ন্যাক্স। বেনুদির রান্নাবান্না বিভাগে দু’জনের খেতে খরচ পড়বে কর-সহ ৬০০ টাকা। এই ক’দিন অবশ্য চিলেকোঠার নিজস্ব মেনু থেকেও অর্ডার করা যাবে আ লা কার্টে।

সব খবর প্রতি সকালে আপনার ইনবক্সে পেতে
Read our Email Policy Here
bbb
আরও পড়ুন